নিজের ভূমিকায় প্রিয়াঙ্কা নয় আলিয়া-কে পছন্দ মা শীলার

কয়েকমাস আগে ‘দ্য এলেন শো’-তে গেস্ট হিসেবে এসে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া জানিয়েছিলেন মা আনন্দ শীলার বায়োপিক বানাবেন তিনি। সেই ছবি তিনি নিজেই প্রযোজনা করবেন ও অভিনয়ও করবেন। এমনকি পরিচালক হিসেবে বেরি লেভিনসনের নামও ঘোষণা করে দেন তিনি। কিন্তু এই প্রসঙ্গে শীলা বলেন, “আমি ওকে বলেছি যে, এই ছবির অনুমতি আমি দিচ্ছি না । কারণ আমি ওকে নির্বাচন করিনি । সুইৎজারল্যান্ডে খুব সহজে লিগাল নোটিশ পাঠানো যায় । আমি প্রিয়াঙ্কাকে একটা মেইল মারফৎ সেই নোটিশ পাঠিয়ে দিয়েছি ।” তবে প্রিয়াঙ্কা সেই মেইলের কোনও উত্তর দেননি বলে জানিয়েছেন শীলা । এক সাক্ষাৎকারে শীলা স্পষ্ট জানিয়ে দেন যে, তিনি তার বায়োপিকে আলিয়া ভাটকে চান…যার মধ্যে নিজের অল্প বয়সের ঝলক দেখতে পান তিনি । শীলা বলেন, “আমার মধ্যে যে তেজ ছিল, সেই তেজ আলিয়ার মধ্যেও আছে বলে আমার মনে হয় । আর এই তেজ জিনিসটা খুব ন্যাচারাল, কৃত্তিম বা মেকি নয় । আমার অল্প বয়সের লুকের সঙ্গেও আলিয়ার মিল রয়েছে ।” ভারতের গডম্যান রজনীশ বা ওশোর পার্সোনাল সেক্রেটারি মা আনন্দ শীলা এক মহীয়সী মহিলা । ১৯৮৪ সালে রজনীশী বায়োটেরর অ্যাটাক-এর মূল কাণ্ডারি ছিলেন শীলা । অপরাধ প্রমাণিত হলে তার ২০ বছরের জেল হয় । জেল থেকে বেরিয়ে সুইৎজারল্যান্ডে গিয়ে নতুন জীবন শুরু করেন শীলা, দ্বিতীয় বার বিয়ে করেন ও দু’টো নার্সিংহোম কিনে নেন । প্রথম স্বামীকেও (মার্ক হ্যারিস সিলভারম্যান) শীলা বিষ প্রয়োগ করে হত্যা করেন বলে শোনা যায় । মা আনন্দ শীলার জীবনের একটু খানি অংশ শুনেই বোঝা যাচ্ছে যে, তার জীবন কতটা সিনেম্যাটিক । বিশেষ করে নেটফ্লিক্সের একটি ডকুমেন্ট্রিতে শীলার জীবন ফুটে ওঠার পর থেকে অনেকেই তার বায়োপিক তৈরি করতে ইচ্ছুক । সেই অনেকের তালিকায় ছিলেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। তবে স্বয়ং মা শীলার আপত্তিতে প্রিয়াঙ্কার সেই মনোস্কামনা অধরাই থেকে যাবে বলে মনে হচ্ছে।