মুক্তির আগে পানিপত-এর স্পেশাল স্কিনিং-এ হাজির বি-টাউন

আগামীকালই সাড়ম্বরে মুক্তি পেতে চলেছে আশুতোষ গোয়াড়িকরের ড্রিম প্রজেক্ট ‘পানিপত’। ১৭৬১ সালে তৃতীয় পানিপতের যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে তৈরি এই ছবিতে প্রধান ভূমিকায় দেখা যাবে অর্জুন কাপুর, সঞ্জয় দত্ত, কৃতী স্যানন এবং মনীষ বহেলকে। ছবিতে অর্জুন কাপুর অভিনয় করেছেন সদাশিবরাও বহু-র ভূমিকায়। এই ছবির প্রমোশন করতে গিয়ে অর্জুন কাপুর জানান অনেক কথা। জানা যায় এই ছবির কাহিনি ইতিহাসের পাতায় অত বিস্তৃতভাবে লেখা নেই। যদিও কাহিনি মূলত যুদ্ধের, তবু এটা একটা দেশাত্মবোধক ছবি। ইউনাইটেড ইন্ডিয়ার হয়ে প্রথম যে যুদ্ধ সেই যুদ্ধকেই দেখা যাবে এই ছবিতে। অভিনয়ের জন্য তাঁকে অনেক পরিশ্রম করতে হয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে মস্তক মুণ্ডন। তাঁর মতে এই ছবিতে তাঁকে দেখে পেশওয়া কমিউনিটি গর্ব অনুভব করবে। অর্জুনের মতে এই ছবির মূল চরিত্র সদাশিবরাও-কে দেখানো হয়েছে একজন কখনওই ঝুঁকতে না চাওয়া বীর যোদ্ধা হিসেবে। ছবিতে এক বিশেষ ভূমিকায় রয়েছেন সঞ্জয় দত্ত। প্রথমে অর্জুন বিস্মিত হয়েছিলেন এই ভূমিকায় আশুতোষ সঞ্জয়কে নিয়েছেন বলে। কিন্তু তিনি জানিয়েছেন, ছবির শুটিং-এর সময় তিনি বুঝতে পেরেছিলেন, কেন সঞ্জয় দত্তকে নেওয়া হয়েছে। আশুতোষ চেয়েছিলেন, সংঘর্ষটা যেন ‘ম্যান ভার্সেস ম্যান’ হয়। তবে পাশাপাশি অর্জুন জানিয়েছেন, সঞ্জয় আসলে ভিতরে-ভিতরে একজন শিশুও। অর্জুন জানিয়েছেন, দর্শক যখন ‘পানিপথ’ দেখবেন তখন তাঁদের স্মৃতিতে ‘বাজিরাও মাস্তানি’র কথা মনে আসবে। তিনি মনে করেন সঞ্জয় লীলা বনশালী এবং আশুতোষ গোয়ারিকর দু’জনেই আলাদা ধরনের চলচ্চিত্রকার, তবে দু’জনের ছবিই অত্যন্ত এন্টারটেইনিং। তবে অর্জুন বলেছেন যদি তিনি এই ছবির জন্য মাথা ন্যাড়া না করতেন, তাহলে পেশোয়া সম্প্রদায় তাঁর প্রতি রুষ্ট হতেন। তাই তাঁর চাপ ছিল যাতে চরিত্রটির লুক বিশ্বাসযোগ্য হয়। সিনেমা হলে মুক্তির আগে মুম্বইয়ে আয়োজিত হয়েছিল পানিপত-এর স্পেশাল স্ক্রিনিং।  স্পেশাল স্ক্রিনিংয়ে হাজির হয়েছিলেন অক্ষয় কুমার, অনিল কাপুর, জ্যাকি ভগনানি, হরমন বাওয়েজা, বরুণ শর্মা, নূপুর স্যানন, গোল্ডি বহল, সিদ্ধার্থ রয় কাপুর, লভ রঞ্জন, শশাঙ্ক খৈতান, অনশূলা কাপুর, মধুর ভন্ডারকর, মোহিত মারওয়া, সোনালি কুলকর্নী, চাঙ্কি পান্ডে, সিদ্ধান্ত কাপুর, মনীষ বহল, প্রানূতন বহল, পদ্মিনী কোলহাপুরে এবং অন্যান্যরা। ছবিটি দেখার পর সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের প্রতিক্রিয়াও জানান অনিল কাপুর, সিদ্ধান্ত কাপুর।